আপনার ফোনের স্পিড বাড়ানোর ১০টি কার্যকারি উপায়

তুন ফোন কেনার সময়ের কথা কি আপনার মনে আছে? খুব দ্রুত কাজ করছিলো ,তাই না? কিন্তু সময় যেতে যেতেই এটি খুব ধীরে কাজ করা শুরু করেছে, ঠিক? চিন্তার কিছু নেই, এটা খুবই সাধারণ একটি সমস্যা। নিচের এই গাইডটি আপনার জন্যেই লেখা যাতে করে আপনার ফোনের স্পিড বেড়ে উঠে। তাই, পড়ে ফেলুন আমাদের এই গাইডটি।

বিষয়বস্তুঃ

১) সমস্যা অনুধাবন

প্রথম যে কাজটি করতে হবে তা হলো সমস্যাটি খুঁজে বের করা। সমস্যাটি কি হতে পারেঃ একটি এপ্লিকেশন, অনেকগুলো এপ্লিকেশন নাকি সিস্টেমের কোন সমস্যা? Trepn Profiler আপনাকে দেখাবে রিয়েল টাইম সিপিউ লোড, নেটওয়ার্ক ট্রাফিক (ওয়াইফাই/ডাটা), র‍্যাম ইউজেজ সহ আরো অনেক কিছু।

Advertisement
Trepn-Profiler
Trepn Profiler এর একটি স্ক্রিনশট

সমস্যাগুলো খুঁজে বের করা হয়ে গেলে এবার স্যলুশনের দিকে যাওয়া যাক। Trepn Profiler ডাউনলোড করুন

২) স্টোরেজ খালি করুন

আপনি যে সমস্ত ফটো তুলেছেন এবং যে সমস্ত অ্যাপস ইনস্টল করেছেন সেগুলি আপনার ফোনে তাদের টোল লাগাতে পারে। এগুলোর কিছু জায়গার প্রয়োজন হয় যাতে করে খুব স্মুথ ভাবে চলতে পারে। যদি জায়গা কম থাকে তাহলে এগুলো খুব স্লো হয়ে যায়।

ফোনের-জায়গা-খালি-করুন
জায়গা খালি আছে কি নেই তা বোঝার উপায়

Settings>Storage এ গেলেই আপনি দেখতে পাবেন কতটুকু জায়গা আছে কি নেই। এছাড়া Settings>Apps এ গেলে দেখতে পাবেন কোন এপ্লিকেশন বেশি জায়গা নিচ্ছে। সেখান হতে আপনি অপ্রয়োজনীয় এপ্লিকেশন আনইন্সটল করে ফেলতে পারেন।

Advertisement
এপ্লিকেশন-আনইন্সটল
আনইন্সটল করার উপায়

আরো কিছু উপায়ে স্টোরেজ খালি করা যায়। যেমনঃ

    • Downloads এ গিয়ে সেখানের অপ্রয়োজনীয় ফাইল ডিলেট করে দিলে কিছু জায়গা খালি হয়ে যাবে।
    • এছাড়া Settings>Storage এ গিয়ে Clear Cache করলেও কিছু জায়গা খালি করা যাবে।
    • Available Space এর দিকে নজর দিলেই আপনার স্টোরেজ নিয়ে একটা আইডিয়া পেয়ে যাবেন।
    • এছাড়া আপনার মোবাইলের বিল্ট ইন এপ্লিকেশন যেগুলো ব্যবহার করেন না সেগুলো Disable করে দিতে পারেন। এছাড়া ফোন রুট করা থাকলে সেই এপ্লিকেশন গুলো ডিলেট করে দিতে পারবেন।

 

৩) উইজেট দূরিকরণ

আপনি যেসব উইজেট ব্যবহার করছেন সেগুলো হইতো গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু এগুলো কিছু জায়গা দখল করে থাকে।

Advertisement
উইজেট-দূরকরণ
উইজেট আপনার রিসোর্স দখল করে থাকে

যেসব উইজেট আপনার কোন কাজে আসে না বা আপনি ইউজ করেন না সেগুলো ডিজেবল করে দিন। এগুলো একটিভ থাকলেও তেমন কিছু যায় আসে না কিন্তু একসাথে অনেক উইজেট ফোন স্লো এর সামান্য কারন হতে পারে।

 

৪) অপ্রয়োজনীয় এনিমেশন ডিজেবল করুন

আপনার লঞ্চারে যে এনিমেশন ব্যবহার করা হয় তা আপনার কাছে আকর্ষণীয় লাগলেও এটি আপনার ফোনকে স্লো করে ফেলে। লঞ্চারে যে স্পেশাল ইফেক্ট আপনি ব্যবহার করছেন সেটিও কিন্তু ফোনকে ধীরে ধীরে স্লো করে দিচ্ছে।

Advertisement

আপনার লঞ্চারের সেটিংস লক্ষ্য করুন হয়ত সেই ইফেক্ট বা এনিমেশন বন্ধ করার একটি উপায় আপনি পেয়ে যাবেন।

এনিমেশন-ডিজেবল-করুন
এনিমেশন ডিজেবল করুন যত দ্রুত পারেন

৫) এপ্লিকেশন বন্ধ করে রাখুন এবং র‍্যাম বাঁচান

মাল্টি টাস্কিং বা একই সাথে অনেকগুলো অপ্লিকেশিন চালানো সত্যি বেশ সময় বাচায় আবার কাজগুলোকে সহজ করে তোলে কিন্তু এটি আপনার ফোনের পারফরমেন্স এর উপরেও প্রভাব ফেলে। আপনি খুব দ্রুতই অব্যবহৃত এপ্লিকেশন গুলো বন্ধ করে ফেলতে পারেন। হোম বাটন চেপে ধরে রাখলে চালু থাকা এপ্লিকেশন দেখাবে সেখান থেকে সোয়াইপ করে এপ্লিকেশন বন্ধ করে ফেলতে পারেন নিমিষেই।

Advertisement
সেইভ-র‍্যাম
চালু থাকা এপ্লিকেশন বন্ধ করার নিয়ম
  • এই স্ক্রিনে থাকা কালীন পাই চারটে ক্লিক করে র‍্যামের অপশনে আসুন
  • এরপর Clear Memory বাটনে ক্লিক করলেই ব্যাকগ্রাউন্ডে থাকা সব এপ্লিকেশন বন্ধ হয়ে যাবে।

 

৬) ফোন রিস্টার্ট দিন

ফোন স্লো সমস্যা সমাধানের একটি সিম্পল ট্রিক হলো ফোন রিস্টার্ট দেওয়া। এতে ব্যাকগ্রাউন্ড এপ্লিকেশন, কেইচ এবং বিভিন্ন টাস্ক খুব দ্রুত ক্লিয়ার হয়ে যায়। এবং আগের মত স্মুথলি কাজ করে।

Advertisement
  • পাওয়ার বাটন চেপে ধরে রাখলে Restart বাটন দেখাবে সেখানে ওকে বাটনে ক্লিক করতে হবে।
রিবুট
রিস্টার্ট করলে দ্রুতই আগের পারফরমেন্স ফিরে পাওয়া সম্ভব

৭) আপডেটেড সফটওয়্যার ব্যবহার নিশ্চির করুন

আপনি কি বারবার আপডেটের নোটিফিকেশন মুছে দিচ্ছেন? কিন্তু এই নোটিফিকেশন এ আপনার ভালটুকু নিহিত আছে। সফটওয়্যার আপডেট নতুন ফিচারের সাথে সাথে পুরনো বাগ ফিক্স করে দেয়। এবং আপনার ফোনের পারফরমেন্স বৃদ্ধি করে।

এজন্য নিচের গাইডটি দেখতে পারেনঃ

Advertisement
আপডেট-সফটএয়ার
সফটওয়্যার আপডেট নোটিফিকেশন

অবশ্যই আপনার ফোনের সফটওয়্যার আপডেট করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অনেক বেশি সাইজের আপডেট আসলেও তা দিয়ে ফেলা উচিত। কারন এতেই ভালো।

 

৮) গভীরে দেখুন

আপনি ব্যাটারি অপশনটি ব্যবহার করেও পারফরমেন্স ভাল করতে পারেন। এজন্য যেতে হবে Settings > Battery

Advertisement

আপনি আপনার র‍্যাম ইউজকে মনিটর করতে পারেন। এটি আপনি খুঁজে পাবেন Settings>RAM (ফোনের নির্মাতার উপরে নির্ভর করে কোথায় এই অপশন থাকবে)

এছাড়া আপনি ডেভেলপার অপশনটুকু খুতিয়ে দেখতে পারেন। এটি একটিভ করার জন্য Settings > About Phone > Build Number কে সাতবার টাচ করতে হবে।

Advertisement

৯) রুট করুন

ফোন রুট একমাত্র এডভান্স ব্যবহারকারী দের জন্য। অন্যরা ডেভেলপার অপশন ব্যবহার করে মোটামুটি পারফরমেন্স পেয়ে যাবেন।

রুট করা ফোনে আপনি যেকোন নতুন কাস্টম রম ব্যবহার করতে পারবেন। কাস্টম রম আপনার ফোনের র‍্যাম ক্লিয়ার রাখবে, স্মুথ পারফরমেন্স দিবে এছাড়া প্রসেসর ওভারক্লকিং থেকে শুরু করে আরো বেশ কিছু সুবিধা পেয়ে যাবেন।

Advertisement

খুশি হবেন না এত, কারন এই প্রেসেসগুলো খুবই রিস্কি। রুট করা একটি জটিল পদ্ধতি এবং এটি মোবাইলের ওয়ারেন্টি নষ্ট করে। কেয়ারলেস যে কেউ নিজের ফোন নষ্ট করে ফেলতে পারে।

১০) ফোন রিসেট দেওয়া

হ্যাঁ, এটিই সেই পুরনো এবং নির্ভর যোগ্য একটি সলিউশন যা আপনার ফোনকে নতুনের মত যৌবন আই মিন পারফরমেন্স ফিরিয়ে এনে দিবে। আপনার পুরনো সকল ফাইল,  এপ্লিকেশন থেকে শুরু করে সবকিছুই মুছে যাবে। নতুনের মত হয়ে যাবে ঠিক যেমনটি মোবাইল কেনার সময় হয়েছিল।

Advertisement

রিসেট করার জন্য নিচের নিয়ম অনুসরন করুনঃ

  • Settings >Backup and Reset নামে অপশনে গিয়ে Factory data reset থেকে Reset phone ক্লিক করুন।
  • আপনার কাছে ফোনের পাসওয়ার্ড চাওয়া হবে এরপর Erase everything বাটনে ক্লিক করুন।
  • কাজ হয়ে গেলে রিবুট বাটনে ক্লিক করুন।
  • সহজেই রিসেট হয়ে গেলো।
রিসেট-ফোন
রিসেট দেওয়ার সিস্টেম

রিকোভারি মোডে রিসেট সিস্টেম

এছাড়া আরেকটি উপায়ে ফোন রিসেট করা যাবে। সেটি রিকোভারি মোডে গিয়ে। আপনার ফোনের অবস্থা যদি বেশি খারাপ হয় তাহলে এই উপায়টি বেশ কাজে আসবে। এক্ষেত্রেও আপনার ফোনের সবকিছু মুছে যাবে। নিচের পদ্ধতিতে কাজ করুনঃ

  • মোবাইল বন্ধ করে ফেলুন
  • নিচের ভলিউম বাটন এবং পাওয়ার বাটন একসাথে টিপে ধরে রাখুন যতক্ষন না ফোন চালু হয়।
  • এবার পাওয়ার বাটন ক্লিক করলে রিকোভারি মোড আসবে যেখানে একটা রোবট দেখা যাবে
  • ভলিউন ডাউন বাটম টিপতে থাকুন যতক্ষন না Wipe data/factory খুঁজে পাচ্ছেন।
  • এরপর পাওয়ার বাটনে ক্লিক করুন
  • রিসেট কম্পলিট হলে পাওয়ার বাটনে টিপে রিবুট করুন।

ইমেইজ সোর্সঃ AndroidPIT
ফিচার ইমেইজ সোর্সঃ Freepik

Advertisement

এভাবেই আপনার ফোনের স্পিড বেড়ে যাবে। আপনার কাছে ফোনের স্পিড বাড়ানোর কোন ট্রিক থাকলে আমাদের জানাতে ভুলবেন না।

Advertisement

One thought on “আপনার ফোনের স্পিড বাড়ানোর ১০টি কার্যকারি উপায়

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।