NotunBlog
নতুনBlog » বিজ্ঞান » জ্যোতির্বিদ্যাঃ মহাবিশ্বের বিজ্ঞান

জ্যোতির্বিদ্যাঃ মহাবিশ্বের বিজ্ঞান

জ্যোতির্বিদ্যা একটি প্রাচীনতম বিজ্ঞান। আকাশ দেখে আমাদের মহাবিশ্বকে জানার মৌলিক তত্ত্বের উপর ভিত্তি করে এই বিজ্ঞানের উৎপত্তি। জ্যোতির্বিজ্ঞান দুটি অংশে ভাগ হয়ে গিয়েছে: পর্যবেক্ষণিক জ্যোতির্বিজ্ঞান এবং তাত্ত্বিক জ্যোতিঃপদার্থবিজ্ঞান। প্রথমটির কাজ হল উপাত্ত সংগ্রহ করা, যার জন্য প্রয়োজন উপযুক্ত যন্ত্র তৈরি ওর এর সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ। দ্বিতীয়টির মূল বিষয় হচ্ছে এই পর্যবেক্ষণগুলোর সাপেক্ষে উপযুক্ত নকশা প্রণয়ন বা কম্পিউটার নকশায় এর রুপদান। পর্যবেক্ষণিক জ্যোতির্বিজ্ঞান যেকেউ শখের বশেই শুরু করলেও এভাবেই কিন্তু মূল জ্যোতির্বিজ্ঞান চর্চা শুরু হয়।

এমন জ্যোতির্বিদ্যা জ্ঞানশূন্য লক্ষাধিক মানুষ রয়েছে যারা তাদের বারান্দায় দাঁড়িয়ে প্রতিদিন উপভোগের জন্য নক্ষত্রপুঞ্জ পর্যবেক্ষন করছে। আবার এমন অনেক অভিজ্ঞ এই বিজ্ঞান চর্চা করলেও এটি তাদের জীবনধারনের পথ হতে পারেনি।

আরো পড়ুনঃ মহাকাশের শুরু কোথায়?

প্রফেশনালি প্রায় ১১,০০০ দক্ষ জ্যোতির্বিজ্ঞানী তাদের রিসার্চ চালু রেখেছে।  তাদের এই রিসার্চের ফলাফলই কিন্তু আমাদের এই বিশ্বব্রহ্মাণ্ড সম্পর্কিত ধারনা বদলে দিচ্ছে। এবং এই কারণে কৌতুহলেরব কিন্তু শেষ নেই, কিভাবে এই মহাবিশ্বের উৎপত্তি বা এই বিশ্বব্রহ্মাণ্ডে কি রয়েছে এবং কিভাবে সেইসব জায়গায় পৌঁছানো যায় ইত্যাদি।

জ্যোতির্বিদ্যা -র ধারনা

জ্যোতির্বিদ্যার কথা শুনলে মনে হয় নক্ষত্র বা তারাদের দিকে এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকার কথা। অবশ্য এভাবেই কিন্তু শুরু হয় এই বিদ্যার চর্চা।  ইংরেজি Astronomy শব্দের উৎপত্তি হয় পুরনো দুটি গ্রীক টার্ম থেকে। একটি হল astron যার অর্থ নক্ষত্রপুঞ্জ অন্যটি হল nomia যার অর্থ আইন। অর্থাৎ,  Astronomy মানে হল নক্ষত্ররাজির আইন বা পথ। জ্যোতির্বিজ্ঞানের পুরনো ইতিহাস যেমন নক্ষত্ররাজির অনুসরন, রেখা টানা ইত্যাদির মাধ্যমে মহাজাগতিক বস্তুকে পর্যবেক্ষন বোঝা যায়।

জ্যোতির্বিদ্যা
রেখা টেনে জ্যোতির্বিদ্যার চর্চা

প্রারম্ভিক সময়ে জ্যোতির্বিজ্ঞান শুধুমাত্র খালি চোখে বস্তুর গতি পর্যবেক্ষণ এবং পূর্বাভাস এর মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। কিছু কিছু স্থানে প্রাথমিক সংস্কৃতি বিপুল সংখ্যক বস্তু সংগ্রহ করেছিল। যা সম্ভবত কিছু জ্যোতির্বিদ্যাগত উদ্দেশ্য ব্যবহার করা হয়েছিল। অধিকন্তু তাদের আনুষ্ঠানিক কিছু ব্যবহার ছিল, যেমন- এই পর্যবেক্ষণগুলি ঋতু নির্ধারণের জন্য নিযুক্ত করা যেতে পারে, ফসল চাষ করার সময় এবং সেইসাথে বছরের দৈর্ঘ্যকে বোঝার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান এটি ।

নক্ষত্র

তাহলে জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা কোন উপাদান নিয়ে এত জল্পনা কল্পনা করতো? নক্ষত্র দিয়ে শুরু করা যাক। মিল্কিওয়ে ছায়াপথের দশ সহস্রেরও বেশি নক্ষত্ররাজির মধ্যে সূর্য একটি নক্ষত্র। মিল্কিওয়ে নিজেও অগনিত ছায়াপথের মধ্যে একটি। প্রতিটি ছায়াপথেও আবার অসংখ্য নক্ষত্রপুঞ্জ আছে। ছায়াপথ নিজেরা ক্লাস্টার এবং সুপারক্লাস্টারের মধ্যে একত্রিত হয়ে বিশাল রূপ ধারণ করে। জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের ভাষ্যমতে এটিকে বলা হয় “মহাবিশ্বের বড় আকারের গঠন”

নক্ষত্র নিয়ে বিস্তারিত আর্টিকেলটিতে চোখ বুলিয়ে নিন।

গ্রহাণুপুঞ্জ

গ্রহপুঞ্জ
গ্রহানু এবং অতলশূন্যের উপাদান

আমাদের নিজস্ব সৌর সিস্টেম গবেষণার জন্য একটি সক্রিয় উপাদান। প্রাথমিক পর্যবেক্ষক লক্ষ্য করেন যে, বেশিরভাগ তারকা স্থানান্তরিত হয় নি। কিন্তু, এমন বস্তুগুলি ছিল যা তারাগুলির ঘূর্ণির বিরুদ্ধে ঘোরাফেরা করছে। কিছু খুবই ধীরগতিতে আবার কিছু দ্রুত। পর্যবেক্ষকরা এদের Planetes নামে নামকরণ করে। গ্রীক ভাষায় যাকে Wanderers বা পর্যটক বলা হয়। যাকে সহজ ভাষায় আমরা গ্রহ বলি।  এছাড়া গ্রহাণু এবং ধূমকেতু নিয়েও জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছে।

অতল মহাশূন্য

শুধুমাত্র গ্রহ বা নক্ষত্রই আমাদের ছায়াপথে ভীড় জমায় নি। অসংখ্য বিশাল বিশাল মেঘ এবং গ্যাসও কিন্তু ছায়াপথে বিরাজ করছে। এসব জায়গাতেই নতুন নক্ষত্রের জন্ম হয় আবার মৃত্যুও হয়। অদ্ভুতভাবে ধ্বংস হয়ে যাওয়া বা মৃত নক্ষত্র গুলোই কিন্তু নিউট্রন স্টার বা ব্ল্যাক হোল। তারপরে, কাসার, এবং অদ্ভুত “প্রাণী” যাকে চুম্বক বলা হয়, পাশাপাশি সংঘর্ষের ছায়াপথ, এবং আরও অনেক কিছু(!)

মহাবিশ্ব নিয়ে ঘাটাঘাটি

বুঝতেই পারছেন, জ্যোতির্বিজ্ঞান একটি জটিল বিষয় হিসাবে পরিণত হয়েছে এবং এক্ষেত্রে মহাবিশ্বের রহস্যগুলি সমাধান করতে অন্যান্য বিজ্ঞানেরও সহায়তার প্রয়োজন আছে। জ্যোতির্বিজ্ঞান বিষয়গুলির সঠিক গবেষণার জন্য, জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা গণিত, রসায়ন, ভূতত্ত্ব, জীববিজ্ঞান এবং পদার্থবিজ্ঞানের দিকগুলি একত্রিত করে। জ্যোতির্বিদ্যা বিজ্ঞানকে পৃথক উপ-শৃঙ্খলা মধ্যে ভাগ করা হয়। উদাহরণস্বরূপ, গ্রহবিজ্ঞানী সৌরজগতের পাশাপাশি দূরবর্তী তারাকে ঘিরে থাকা পৃথিবী  (গ্রহ, চাঁদ, রিং, গ্রহাণু এবং ধূমকেতু) নিয়ে গবেষণা করেন। সৌর পদার্থবিজ্ঞানী সূর্য এবং সৌরজগতের উপর তার প্রভাবগুলিতে মনোযোগ দেয়। তাদের কাজ যেমন অগ্নিতরঙ্গ, ভর ইনজেকশনস, এবং সানস্পট হিসাবে সৌর কার্যকলাপের পূর্বাভাস দিয়ে সাহায্য করে।

সকল রহস্যের সমাধান করে তথ্য একীভূত করা

এস্ট্রোফিজিসিস্ট, নক্ষত্র কিভাবে কাজ করে তা ব্যাখ্যা করার জন্য নক্ষত্র এবং ছায়াপথের গবেষণায় পদার্থবিদ্যা প্রয়োগ করে।  মহাবিশ্বের বস্তু ও প্রক্রিয়াগুলি থেকে প্রাপ্ত রেডিও ফ্রিকোয়েন্সিগুলি অধ্যয়ন করতে রেডিও জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা (রেডিও জ্যোতির্বিজ্ঞান দৃশ্যমান পরিসীমার বাইরে বিকিরণ ব্যবহার করে যা প্রায় এক মিলিমিটারের চেয়ে বেশি তরঙ্গদৈর্ঘ্য। রেডিও জ্যোতির্বিদ্যা বেশিরভাগ পর্যবেক্ষণ জ্যোতির্বিজ্ঞান থেকে আলাদা, যেটি পর্যবেক্ষণকৃত রেডিও তরঙ্গকে আলাদা ফোটনসের পরিবর্তে তরঙ্গ হিসেবে গণ্য করা যায়।) রেডিও টেলিস্কোপ ব্যবহার করে। অতিবেগুনী, এক্সরে, গামা-রে, এবং ইনফ্রারেড জ্যোতির্বিজ্ঞান (ইনফ্রারেড জ্যোতির্বিদ্যা ইনফ্রারেড বিকিরণ সনাক্তকরণ এবং বিশ্লেষণের উপর ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠিত হয়, তাছাড়া তরঙ্গদৈর্ঘ্য যা লাল আলোর চেয়ে ব্যাপক এবং আমাদের দৃষ্টি পরিসীমার বাইরে তা সনাক্ত করার জন্য এই জ্যোতির্বিদ্যা ব্যবহৃত হয়।) আলোর অন্যান্য তরঙ্গদৈর্ঘ্যের মহাজাগতিক প্রকাশ করে। এস্ট্রামেট্রি হলো বস্তুর মধ্যে স্থান দূরত্ব পরিমাপের বিজ্ঞান। গণিতের জ্যোতির্বিজ্ঞানীরাও সংখ্যাগুলি, গণনা, কম্পিউটার এবং পরিসংখ্যান ব্যবহার করে যা অন্যান্য মহাবিশ্বের মধ্যে কী পরিলক্ষিত হয় তা ব্যাখ্যা করে।

অবশেষে, মহাবিশ্ববিদরা প্রায় ১৪ বিলিয়ন বছর জুড়ে তার উৎস এবং বিবর্তনকে ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করার জন্য সমগ্র বিশ্বব্রহ্মাণ্ডকে অধ্যয়ন করেন।

জ্যোতির্বিজ্ঞানের সরঞ্জামাদি

জ্যোতির্বিদ্যা
প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি সমেত একটি স্টেশন

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা শক্তিশালী দূরবীনগুলির সাথে সজ্জিত ওপরেটোরিগুলি ব্যবহার করে যা মহাবিশ্বের ধীর এবং দূরবর্তী বস্তুর দৃশ্যকে বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে। তারা নক্ষত্রের বর্ণ, গ্রহ, ছায়াপথ, এবং নেবুল্ল থেকে আলোর বিভাজন করতে এমন কিছু যন্ত্রগুলি ব্যবহার করে যা নক্ষত্র কীভাবে কাজ করে সে সম্পর্কে আরও বিশদভাবে প্রকাশ করে। বিশেষ আলোর মিটার (ফটোমোটার্স) সাহায্যে তারকীয় উজ্জ্বলতা পরিমাপ করা যায়।

বোনাস

জ্যোতির্বিজ্ঞানের একটি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ প্রাথমিক উন্নতি ছিল গাণিতিক এবং বৈজ্ঞানিক ক্ষেত্রে যা বেবিলনীয়দের মাধ্যমে শুরু হয়েছিল । এটি পরবর্তী জ্যোতির্বিদ্যার ঐতিহ্যগুলির ভিত্তি স্থাপন করেছিল যা পরে অন্যান্য সভ্যতার মধ্যে উদ্ভূত হয়েছিল। বেবিলনীয়রা আবিষ্কার করেছিলেন যে চন্দ্রগ্রহণগুলি একটি পুনরাবৃত্ত চক্রের মধ্যে সম্পন্ন হত যা সারোস নামে পরিচিত।

বেবিলনীয়দের অনুসরণ করে জ্যোতির্বিজ্ঞানে গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি প্রাচীন গ্রীস এবং হেলেনীয় বিশ্বের মধ্যে তৈরি করা হয়েছিল। গ্রীক জ্যোতির্বিদ্যা মূলত স্বর্গীয় ঘটনাগুলির জন্য একটি যুক্তিসঙ্গত এবং শারীরিক ব্যাখ্যা চাওয়ার মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছিল। খ্রিস্টপূর্ব ৩য় শতাব্দীর দিকে সামোস এর আরিস্টার্খস চন্দ্র এবং সূর্যের আকার এবং দূরত্ব অনুমান করেছিলেন, এবং সৌরজগতের একটি সূর্যকেন্দ্রিক মডেলের প্রথম প্রস্তাব করেছিলেন ।

ছায়াপথের অসংখ্য নক্ষত্রপুঞ্জ

খ্রিস্টপূর্ব ২য় শতাব্দীতে হিপ্পার্কাস অয়নচলন আবিষ্কার করেছিলেন। তাছাড়া চাঁদের আকার এবং দূরত্ব গণনা করেছিলেন এবং সর্বপ্রথম জ্যোতির্বিদ্যার জন্য যন্ত্র যেমন অস্ট্রোল্যাব আবিষ্কার করেছিলেন । হিপ্পার্কাস ১০২০ টি নক্ষত্রের একটি বিস্তৃত ক্যাটালগ তৈরি করেছিলেন এবং উত্তর গোলার্ধের অধিকাংশ নক্ষত্র গ্রিক জ্যোতির্বিদ্যা থেকে প্রাপ্ত। এ্যান্টিকিথেরা ব্যবস্থা (খ্রিস্টপূর্ব ১৫০-৮০) দিয়ে একটি প্রাথমিক এনালগ কম্পিউটার ডিজাইন করা হয়েছিল একটি প্রদত্ত তারিখের মাধ্যমে সূর্য, চাঁদ, এবং গ্রহের অবস্থান হিসাব করার জন্য। চতুর্দশ শতাব্দী পর্যন্ত প্রযুক্তিগত জটিলতার শৈল্পিকতা পুনরায় লক্ষ করা যায়নি যতক্ষণ পর্যন্ত না ইউরোপে যান্ত্রিক জ্যোতির্বিদ্যা ঘড়ি আবির্ভূত হয়।

মধ্যযুগে, জ্যোতির্বিজ্ঞান মধ্যযুগীয় ইউরোপে বেশিরভাগই স্থিতিশীল ছিল অন্তত ত্রয়োদশ শতাব্দী পর্যন্ত। যাইহোক, জ্যোতির্বিজ্ঞান ইসলামী বিশ্বে এবং বিশ্বের অন্যান্য অংশে বিকাশ লাভ করেছিল। নবম শতকের প্রথমার্ধে মুসলিম জগতে প্রথম জ্যোতির্বিদ্যা পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রর উত্থান ঘটেছিল। ৯৬৪ সালে, স্থানীয় গ্রুপের সর্ববৃহৎ গ্যালাক্সি হল অ্যানড্রোমিডা ছায়াপথ যা ফার্সি জ্যোতির্বিজ্ঞানী আজোফি দ্বারা আবিষ্কৃত হয় এবং তার বুক অফ ফিক্সড স্টারস এ তা প্রথম বর্ণিত হয়েছিল। এসএন ১০০৬ সুপারনোভা হল লিখিত ইতিহাসে উজ্জ্বল দৃশ্যমান উপাদান যা মিশরীয় আরবি জ্যোতির্বিজ্ঞানী আলি ইবনে রিডওয়ান এবং চীনা জ্যোতির্বিজ্ঞানীগণ ১০০৬ সালে পর্যবেক্ষণ করেছিলেন। কিছু বিশিষ্ট ইসলামিক (বেশিরভাগই ফার্সি ও আরব) জ্যোতির্বিজ্ঞানী যাদের বিজ্ঞানে গুরুত্বপূর্ণ অবদান ছিল, যেমন-আল-বাট্টানী, থেবিট, আজোফি, আলবোমাসার, বেরুনী, আরজাছেল, আল-বীরজান্দি এবং মারাগাহ ও সমরকন্দ পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রর জ্যোতির্বিজ্ঞানী অন্যতম।

সেই সময়ের মধ্যে জ্যোতির্বিজ্ঞানীগণ বহু সংখ্যক আরবি নাম চালু করেছিলেন যা এখন পৃথক নক্ষত্রের জন্য ব্যবহৃত হয়। এটিও বিশ্বাস করা হয় যে গ্রেট জিম্বাবুয়ে এবং টিম্বুক্টুর ধ্বংসাবশেষগুলি একটি জ্যোতির্বিজ্ঞান পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র ছিল। ইউরোপীয়রা পূর্বে বিশ্বাস করতো যে উপ-উপনিবেশিক মধ্যযুগে সাব-সাহারান আফ্রিকাতে কোন জ্যোতির্বিজ্ঞান পর্যবেক্ষণ ছিল না কিন্তু আধুনিক আবিষ্কারগুলি ভিন্ন কথা বলে।

রোমান ক্যাথলিক চার্চ ছয় শতাব্দী ধরে জ্যোতির্বিজ্ঞানের অধ্যয়নের জন্য আরও আর্থিক ও সামাজিক সমর্থন প্রদান করেছিল, মধ্যযুগ উত্তর আধ্যাত্মিক শিক্ষার পুনরুদ্ধার থেকে পুনর্জাগরণে পৌঁছা পর্যন্ত অন্য যেকোনো এবং সম্ভবত অন্যান্য সকল প্রতিষ্ঠানের তুলনায় বেশি ছিল । চার্চ এর অভিপ্রায়ের মধ্যে ইস্টার উৎসব এর জন্য তারিখ গণনা ছিল অন্যতম।

তথ্যসূত্রঃ
১) উইকিপিডিয়া
২) বাংলাপিডিয়া
৩) ফ্রিপিক (ইমেইজেস)

আকাশ

বিশাল বিশাল স্বপ্ন সাথে শূন্য বিনিয়োগ, সফলতা কি সম্ভব?

মন্তব্য করুন

সংযুক্ত থাকুন​

সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে আমাদের সাথে যুক্ত হয়ে সকল আপডেট গুলো সবার আগে পান!

Nullam tempus nec ipsum amet, risus.