Skip to content

৪জি ওয়্যারলেস কি?

চতুর্থ প্রজন্মকে বুঝাতে যে শব্দটি আমরা ব্যবহার করে থাকি তা হল ৪জি বা ফোরজি। ৪জি বর্তমান সময়ের সবচেয়ে বড় একটি উদ্ভাবন যা কিনা ৩জি/থ্রিজি হতে দশগুন বেশি শক্তিশালী। আমেরিকাতে ২০০৯ সালে স্প্রিট ক্যারিয়ার কোম্পানী সর্বপ্রথম ৪জি/ফোরজিকে বিশ্বের সামনে তুলে ধরে। এরপর এক এক করে এখন আমাদের দেশেও ৪জি সেবা নিয়ে এসেছে বিভিন্ন ক্যারিয়ার কোম্পানি। যদিও এখনো অনেক জায়গায় ঠিকমত ৩জি সেবাটিও পাওয়া যায় না।

আরো দেখুনঃ

৪জি স্পিড কেন গুরুত্বপূর্ণ?

আমাদের হাতের ফোন কিন্তু আর আগের অবস্থাতে নেই, এখন সেখানে ভিডিও কংবা মিউজিক স্ট্রিম করার সুবিধা যুক্ত হয়েছে। স্ট্রিম করার ক্ষেত্রে কিন্তু স্পিড কাউকে ছাড় দেয় না। অতীত ঘাটলে কিন্তু দেখা যায়, আমাদের ক্যারিয়ার কোম্পানীগুলো আমাদের যে পরিমাণ ইন্টারনেট স্পিড প্রদান করতো তার থেকে বেশি স্পিড প্রদান করতো ব্রডব্যান্ড সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান গুলো। বর্তমান ৪জিকে কিন্তু ব্রডব্যান্ড সেবার সাথে তুলনা করা যায় এবং যেসব অঞ্চলে ব্রডব্যান্ড পৌঁছায়নি সেসব অঞ্চলে ৪জি বিশেষ স্পিড নিয়ে হাজির হবে।

৪জি টেকনোলজি

৪জি সেবাকে ডাকা হয় ৪জি বা ৪জি এলটিই নামে। যদিওবা ফোরজির অভ্যন্তরীণ টেকনোলজি বিভিন্ন ক্যারিয়ারের ক্ষেত্রে বিভিন্ন রকমের। কিছু কিছু ক্যারিয়ার প্রতিষ্ঠান ফোরজি নেটওয়ার্ক সেবা প্রদানের জন্য ওয়াইম্যাক্স ব্যবহার করে আবার কেউ লং টার্ম এভুলেশন বা এলটিই ব্যবহার করে।

স্প্রিন্ট ক্যারিয়ার কোম্পানির দাবি তাদের ফোরজি অন্যান্য থ্রিজি স্পিড হতে দশগুন বেশি স্পিড প্রদান করে। তারা প্রতি সেকেন্ডে দশ মেগাবাইট স্পিড প্রদান করে। অপরদিকে অন্যান্য ক্যারিয়ার প্রতি সেকেন্ডে ৫ মেগাবাইট হতে ১২ মেগাবাইট স্পিড দিয়ে থাকে।

এরপর কি আসছে?

অবশ্যই ৫জি আসছে। আপনার অগোচরেই,
ওয়াইম্যাক্স এবং এলটিই নেটওয়ার্কে টাটাতে থাকা কোম্পানি আইএমটি-এডভান্সড টেকনোলজির সাথে কথা বলবে যা কিনা ৫জি সেবা প্রদান করবে। প্রথম ৫জি সেবা দেয়া হবে সবচেয়ে বেশি উন্নত শহরগুলোতে। তাহলে আপনি রেডি তো?

ফিচার ছবিঃ AndroidAuthority

আরও দেখুন

No comment yet, add your voice below!


Add a Comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

সামাজিক মাধ্যমে আমরা

বিজ্ঞাপন